Logo
নোটিশ :
দেশের সকল জেলা-উপজেলা-থানা,পৌরসভা,বিশ্ববিদ্যালয় ও সরকারি কলেজ পর্যায় সংবাদকর্মী আবশ্যক । প্রচারেই প্রসার, সীমিত খরচে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দেন আমাদের পত্রিকায় । যোগাযোগ: 019 79 91 08 65 ।
সংবাদ শিরনাম :
মির্জাগঞ্জ উপজেলার ভূমি অফিস পরিদর্শনে ডিএলআরসি : এলডি ট্যাক্স সফটওয়ারের পাইলটিং কার্যক্রম বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় পদেক্ষপ গ্রহণের নির্দেশ ঠাকুরগাঁওয়ে ট্রাক, ট্র্যাংকলরী, কাভার্ড ভ্যান ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের সংবাদ সম্মেলন ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈলে নতুন জামাইয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার  হিজলায় বিক্ষুব্ধ জনতার ধাওয়ায় পংকজ নাথ’র দৌড়! ঠাকুরগাঁওয়ে বিষ্ণুর প্রতিকৃতি সম্বলিত টেরাকোটার মূর্তি উদ্ধার ঠাকুরগাঁওয়ে দৈনিক প্রতিদিনের উত্তরবঙ্গ পত্রিকার ঈদ পুনর্মিলনী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার দাবিতে ঠাকুরগাঁওয়ে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন মেহেন্দিগঞ্জে অটো ও নসিমনের মুখোমুখী সংঘর্ষ আহত ২ ভোলায় সাংসদ পংকজের অনুসারী ফেন্সিডিল সহ পুলিশের হাতে আটক সংবাদকর্মী থেকে ঠাকুরগাঁওয়ের প্রথম নারী মেয়র আ’লীগের বন্যা, ফল বর্জণ বিএনপির
ঠাকুরগাঁওয়ের টাঙ্গনে নির্বিচারে চলছে মা মাছ নিধন !

ঠাকুরগাঁওয়ের টাঙ্গনে নির্বিচারে চলছে মা মাছ নিধন !

ফিরোজ সুলতান (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি  : ‘ মাছে ভাতে বাঙালি’ বহুল প্রচলিত এই প্রবাদটি বাঙালির ঐতিহ্য ও জীবন যাত্রার সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত।

নদী খাল বীল সহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক উৎসের মাছ যেমন পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ, তেমনি খেতেও সুস্বাদু। প্রায় এক দশক আগেও প্রাকৃতিক উৎসের মাছ প্রচুর পাওয়া যেত দেশের উত্তরের এ জেলায়। বর্তমানে তা আর পাওয়া যায় না বললেই চলে। বাজারে অল্প যা কিছু পাওয়া যায় তার দামও অত্যন্ত চড়া। ফলে এ এলাকার ‘মাছে-ভাতের ঐতিহ্যবাহী বাঙালি’ অনেকটা বাধ্য হয়ে অপেক্ষাকৃত কম দামে কিনে খাচ্ছে খামারে বা হ্যাচারীতে চাষ করা মাছ।

ঠাকুরগাঁওয়ের অন্যতম নদী টাঙ্গন। বর্ষার পানি জমা হতে না হতেই টাঙ্গন নদীসহ এর ব্যারাজের পানিতে চলছে মা মাছ নিধনের ‘উৎসব’। একশ্রেণির জেলে ও মাছ শিকারী টাঙ্গন নদী ও ব্যারাজের বিভিন্ন পয়েন্টে কারেন্ট জাল, ফিকা জালসহ বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত ধরছেন মা মাছ । স্থানীয় হাটবাজারে সেগুলো প্রকাশ্যে বিক্রি করলেও কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যাচ্ছে না জেলা মৎস্য বিভাগকে । অথচ এই সময়টা মাছের প্রজননকালীন সময়। কঠোর নজরদারী না থাকায় স্থানীয় জেলেরা অবাধে ধরছে দেশীয় নানা প্রজাতির মা মাছ । কারন বর্ষার এ সময়টাতে ধরা পড়ছে সব ধরনের পোনা ও ডিমওয়ালা মা ঢমাছ।

Exif_JPEG_420

দেশের প্রচলিত মৎস্য আইনে ১ এপ্রিল থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত পোনামাছ ও ডিমওয়ালা মাছ নিধন করা যাবে না। যদি কেউ এ আইন অমান্য করে তাহলে তার অর্থদন্ড ও জেল জরিমানা কিংবা উভয় দন্ড হতে পারে। কিন্তু এর কার্যকর কোনো পদক্ষেপ বাস্তবে দেখা যায় নি এ জেলায়।

গতকাল সোমবার জেলার সদর উপজেলাধীন, টাঙ্গন নদীর বিভিন্ন পয়েন্ট, উত্তর বঠিনা, রুহিয়া টাঙ্গন ব্যরাজ এলাকায় ও পাটিয়াডাঙ্গী ব্রীজ, বরদেশ্বরী ব্রীজ, শুক নদসহ বিভিন্ন ঘুরে দেখা যায় -জেলেরা বাদাই, কারেন্ট, ফিকা, ছাপি জালসহ বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে ডিমওয়ালা কৈ, মাগুর, শিং, টেংরা, পুঁটি, ডারকা, মলা, ঢেলা, শৌল, বোয়াল, ভ্যাদা, বাইম, খলিশা, ফলি, চিংড়ি, টাকি, চিতল, বালিয়া, কাকিলা, চাপিলা, বৈচা, দেশি পুঁটি, সরপুঁটি, তিতপুঁটি, বাচা, পিয়ালি, জয়া, ছোট টেংরা, বড় টেংরা, চ্যাং, ছোট চিংড়ি, বাতাসি, বড় বাইন ,তারা বাইন, শালবাইন, কুচিয়া, খোকসা, গচি, বইরালি, গোলসাসহ নাম না-জানা বহু প্রজাতির মাছ প্রকাশ্যে নিধন করছেন।

যদিও দেশীয় প্রজাতির এই মাছগুলো বিলুপ্তির পথে। সরকারিভাবে মা মাছ নিধন নিষেধ থাকলেও প্রশাসনের নাকের ডগায় প্রতিদিন ডিমওয়ালা ওই মাছগুলো আশপাশের স্থানীয়ভাবে গড়ে ওঠা বাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি করা হচ্ছে। মাছগুলো স্থানীয় লোকজন বেশি দাম হাঁকিয়েই কিনে নিচ্ছেন।

জেলার বিভিন্ন বাজার গুলিতে প্রতি কেজি টেংরা ৬শ’ থেকে ৮শ’ টাকা, পুঁটি ৪শ’ টাকা, মোয়া মাছ ৫-৬শ’ টাকা, ডিমওয়ালা বোয়াল বিক্রি ৮শ’ টাকা কেজি, শৈল বা টাকি মাছের পোনাও ২ থেকে ৩শ’ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

জেলার সচেতন মহলের অনেকেই জানান, একটা সময় ছিল জেলে ও কৃষকেরা শখের বসে স্বল্প আকারে পোনা মাছ ধরত। আর এখন মহোৎসব চলছে পোনা ও ডিমওয়ালা সব ধরণের মাছ নিধনের । তাই এই সময় প্রশাসনের  পক্ষে কঠোর নজরদারী ও পোনা ও ডিমওয়ালা মাছ নিধনে মৎস্য আইন প্রয়োগ করলে মাছের বংশ বৃদ্ধি করা সহজ হত। আর ব্যরাজের ও নদীর পানিতে স্রোত তৈরি হচ্ছে, সে স্রোতের পানিতেই রুই, ঘনিয়াসহ বিভিন্ন জাতের দেশি মাছ ডিম ছাড়বে। পানির স্রোত না থাকলে মাছ ডিম ছাড়তে পারে না। আর টাঙ্গন নদী ও ব্যারাজের স্রোতকে পুজি করেই চলছে মা মাছ নিধন। তাই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন তারা।

ঠাকুরগাঁও জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. মোঃ আফতাব হোসেন বলেন, টাঙ্গন ব্যারাজে বিভিন্ন পয়েন্টে মা মাছ নিধনের বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এ ব্যাপারে ইতিমধ্যে অভিযান শুরু করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে জনবল সংকটের কারণে পুরো এলাকায় একসঙ্গে অভিযান চালানো সম্ভব হচ্ছে না।

Print Friendly, PDF & Email

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *